alo
ঢাকা, মঙ্গলবার, অক্টোবর ৪, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

'হরতাল যৌক্তিক, পেটের দায়ে বের হয়েছি'

প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট, ২০২২, ০২:২০ পিএম

'হরতাল যৌক্তিক, পেটের দায়ে বের হয়েছি'
alo

 

চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ জ্বালানি তেল, সার, পরিবহন ভাড়াসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সারাদেশে বাম গণতান্ত্রিক জোটের ডাকা অর্ধদিবস হরতালের কোন প্রভাব চট্টগ্রাম নগরে পড়েনি। হরতালকারীদের আশেপাশেই ছিল যানবাহনের চাপ। 

তবে এই হরতাল যৌক্তিক বলেছেন বেশিরভাগ পরিবহন যাত্রী, চালক, সহকারীরা। তাদের মধ্যে প্রায় সকলেই জানিয়েছেন দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ডাকা এই হরতালে তাদের নৈতিক সমর্থন আছে। কিন্তু অফিস এবং পেটের দায়ে তাদের ঘর থেকে বের হতে হয়েছে। হরতালকারীরা কোথাও কোন বাঁধা দেয়নি বরং যাত্রী, পরিবহন শ্রমিকদের নিজেদের দাবির কথা বুঝিয়ে লিফলেট দিয়েছেন বলেও তারা জানান।

বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) সকাল ৬টা থেকে শুরু হওয়া এই হরতাল চলে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। এরপর বাম জোটের নেতারা সমাবেশ করে কর্মসূচি শেষ করেন। তবে তাদের মিছিল, পিকেটিং নগরের নিউমার্কেট মোড়, কোতোয়ালি, ফিরিঙ্গি বাজার, স্টেশন রোড এলাকায় সীমাবদ্ধ ছিল।

হরতাল চলাকালীন পথসভায় বাম গণতান্ত্রিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সমন্বয়ক ও বাসদ (মার্ক্সবাদী) নেতা শফিউদ্দিন কবির, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি অশোক সাহা, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদের চট্টগ্রাম জেলার ইনচার্জ আল কাদেরী, মহিন উদ্দিন প্রমুখ বক্তব্য দেন। 

এছাড়াও সভায় ছাত্র ইউনিয়ন চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি এনি সেন, সাধারণ সম্পদক ইমরান চৌধুরী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি মিরাজ উদ্দিন, ছাত্রফ্রন্ট (মার্কসবাদী) সভাপতি দীপা মজুমদার বক্তব্য রাখেন। সংহতি জানিয়ে বক্তব্য দেন পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ, চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি সুপ্রীয় তঞ্চংগ্যা।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, সরকার নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়েই চলছে। সম্প্রতি চালের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে।

তারা বলেন, জ্বালানি তেল ও সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব মানুষের জীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলছে। মানুষ দুর্বিষহ জীবনযাপন করছে। আমরা ধারাবাহিক লড়াই-সংগ্রামের মধ্যে আছি, হরতাল আহ্বান করেছি। সারাদেশের মানুষ আমাদের কর্মসূচির প্রতি স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন ব্যক্ত করেছে।

বক্তারা আরও বলেন, আজ সরকার তার সকল প্রকার দুর্নীতি ও লুটপাটের ভার চাপিয়ে দিচ্ছে জনগণের ওপর। তাই এই অন্যায় দুঃশাসন ও লুটপাটের বিরুদ্ধে দরকার জনগণের সম্মিলিত প্রতিরোধ।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোতোয়ালি জোন) মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, সকালে কোতোয়ালি মোড়ে রাস্তার পাশে বসে সমাবেশ করেছিল হরতালকারীরা। পরে সেখান থেকে গিয়ে তারা নিউ মার্কেট মোড়ে সমাবেশ করছে। তবে তারা রাস্তায় যান চলাচলে কোনো ধরনের বাধা সৃষ্টি করেনি। শান্তিপূর্ণ হরতাল পালন করছে।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

 

X