alo
ঢাকা, মঙ্গলবার, অক্টোবর ৪, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামের যে ২১ জায়গায় হর্ন না বাজানোর দাবি

প্রকাশিত: ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৯:০৭ পিএম

চট্টগ্রামের যে ২১ জায়গায় হর্ন না বাজানোর দাবি
alo

চট্টগ্রাম ব্যুরো: ‘আর নয় শব্দ সন্ত্রাস’ স্লোগানকে সামনে রেখে হাইড্রোলিক হর্ন বন্ধসহ নগরের ২১ স্পটকে নো-হর্ন স্পট ঘোষণার দাবি জানিয়েছে মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন-বিএইচআরএফ।

শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে আয়োজিত এ মানববন্ধনে মানবাধিকার সংগঠনটির পক্ষ থেকে এমন দাবি জানানো হয়।

দূষণমুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে আয়োজিত এ মানববন্ধন বিএইচআরএফ চটগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি জিয়া হাবীব আহ্সানের সভাপতিত্বে ও মাহামুদুর রহমান শাওনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে প্রবীণ মানবাধিকার কর্মী সুনীল কুমার সরকার, চট্টগ্রাম জেলা বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের ট্রেজারার অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ, খাদেমুল ইসলাম চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক সৈয়দ মোহাম্মদ হারুন, মানবাধিকার নেতা গোলাম মাওলা মুরাদ, পরিবেশ কর্মী সুজন বড়ুয়া, সাংবাদিক আবু সুফিয়ান চৌধুরী, লুৎফুন্নাহার রূপসাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এতে স্বাগত বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম জেলার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জসীম উদ্দিন, মানববন্ধন বাস্তবায়ন কমিটির সদস্যসচিব আহ্সান হাবীব বাবু, নুরুল আবসার, লায়লা ইব্রাহিম বানু, ইউসুফ চৌধুরী, মো. আবুল খায়ের, হাসান আলী, কানিজ ফাতেমা লিমা,মোহাম্মদ জামাল উদ্দীন, এমএইচ স্বপন, মো. আনোয়ার, মুহাম্মদ মোজাহেরুল কাদের, প্রদীপ আইচ দিপু, সাইফুদ্দীন খালেদ, বদরুল হাসান, জিয়া উদ্দীন আরমান, নজরুল ইসলাম, মোহাম্মদ এরশাদ আলম, নাভিল প্রমুখ।

মানববন্ধনে হাইড্রোলিক হর্ন বিরোধী আন্দোলনে একক ভূমিকার জন্য সুজন বড়ুয়াকে মানবাধিকার পদক দেওয়া হয়।

‘শব্দ সন্ত্রাস’ বন্ধের পাশাপাশি চট্টগ্রামের টাইগারপাস, বাটালি হিল, জিলাপি পাহাড়, কোর্ট হিল এলাকা, সি আর বি, ডিসি হিল, সার্সন রোড, জাম্বুরী ফিল্ড, ফয়েজ লেক, বায়েজিদ লিংক রোড, ওমেন ভার্সিটি এলাকা, সি বিচ এলাকা, ঝাউতলা, নাসিরাবাদ সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, গোলপাহাড়, প্রবর্তক, চট্টশ্বরী, মেহেদীবাগ, ও আর নিজাম রোড, এম এম আলী রোড, কে বি ফজলুল কাদের রোড প্রভৃতি এলাকাকে হর্ন মুক্ত ‘নিরব এলাকা’ (নো হর্ন স্পট) ঘোষণার জানানো হয়।

যেসব এলাকাগুলোতে হাসপাতাল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার প্রাকৃতিক পরিবেশ ও প্রতিবেশ সুরক্ষায় প্রয়োজন রয়েছে বিধায় ঐসব এলাকাকে ‘নীরব এলাকা’ ঘোষণারও দাবি জানানো হয় মানববন্ধন থেকে।

মানববন্ধনে বক্তারা হাইড্রোলিক হর্নকে ‘শব্দ সন্ত্রাস’ উল্লেখ করে বলেন, শব্দ দূষণের মাধ্যমে এদেশে মানুষ তামাশা করে। উচ্চস্বরে আওয়াজ করে উৎসবে আনন্দ করে। অথচ তারা জানে না, এই দূষণের মাধ্যমে মানুষের কী পরিমাণ ক্ষতি হচ্ছে। হাইড্রোলিক হর্ন বন্ধ করতে পারলে শব্দদূষণ অনেকটাই কমে আসবে।

সামাজিক এই আন্দোলন বাংলাদেশের সর্বত্র ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য সবাইকে সহযগিতার জন্য আহ্ববান জানান বক্তারা।

নিউজনাউ/একে/২০২২

X