alo
ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ২, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দলীয় সভায় বেফাঁস মন্তব্য করে নাজেহাল এমপি মোস্তাফিজ

প্রকাশিত: ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১১:০৫ পিএম

দলীয় সভায় বেফাঁস মন্তব্য করে নাজেহাল এমপি মোস্তাফিজ
alo

 

চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় জেলা সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে বক্তব্য দেওয়ায় নেতাকর্মীদের হাতে নাজেহাল হয়েছেন বাঁশখালী আসনের সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। এসময় তাকে লক্ষ্য করে পানির বোতল ও খাবারের খালি প্যাকেট ছুড়ে মারেন। এতে বর্ধিত সভায় বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হয়।

শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম নগরের এলজিইডি ভবন মিলনায়তনে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা হয়। দক্ষিণের সভাপতি সাংসদ মোছলেম উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। সভা পরিচালনা করেন মফিজুর রহমান।

সভায় উপস্থিত বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বর্ধিত সভায় পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী উপজেলার নেতাদের কাছ থেকে সাংগঠনিক বিষয়ে জানতে চান কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। এসময় বাঁশখালীতে সাংগঠনিক গঠনতন্ত্র অমান্য করে ইউনিয়ন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের বাদ দিয়ে সম্মেলন করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন উপজেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল গফুর। সেসব সভায় সাধারণ সম্পাদক যাচ্ছেন না বলে সভাকে অবহিত করেন তিনি।

আবদুল গফুরের এ বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গে মঞ্চে উপস্থিত জাতীয় সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী ক্ষুব্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে যান। তিনি মঞ্চের মাইকে পাল্টা বক্তব্য দিতে শুরু করলে তার প্রতিবাদ জানান বাঁশখালীর সম্মেলনের দায়িত্বে থাকা জেলা সাংগঠনিক টিমের প্রধান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. ইদ্রিস। বাঁশখালীতে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা মানা হচ্ছে না বলে তিনি নতুন করে অভিযোগ তুললে আরও ক্ষুব্ধ হয়ে সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, অর্থ সম্পাদক মুজিবুর রহমান ও আব্দুল গফুরকে নিয়ে কটু কথা বলেন। 

উনি তখন জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক মুজিবুর রহমানের কথা ইঙ্গিত করে বলেন, আমাদের বাঁশখালীর একজনের একটা পত্রিকা আছে। সে খারাপ লোক। টাকা পয়সা দিয়ে বাঁশখালী আওয়ামী লীগের সেক্রেটারিকে বুক করে রাখছে মফিজ ভাইকেও টাকা দেয়। এসব বলার প্রেক্ষিতে মফিজ ভাই দাঁড়িয়ে এর প্রতিবাদ করেন। তিনি বলতে থাকেন, এই তুমি এসব কথা এগুলো উইথড্র কর, এগুলো উইথড্র কর। এর পর সবাই একসাথে দাড়িয়ে এর প্রতিবাদ করছে। বলেছে আপনি মফিজকে অপমান করেন নাই আপনি জেলা আওয়ামী লীগকে অপমান করছেন।’

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান নিউজনাউকে বলেন, 'বাঁশখালীর সংসদ সদস্যের নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। আমরা প্রায়ই সংগঠনের গতিশীলতা বাড়াতে তাকে অনুরোধ করি। যে কারণে তিনি আমার ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন। তারপরও বর্ধিত সভার বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করবো না।’

সভা শেষে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা ছিল একেবারেই ঘরোয়া মিটিং। এ ধরনের মিটিংয়ে বিভিন্ন মতপার্থক্যের বিষয় উঠে আসে। স্বাভাবিকভাবেই আলোচনা অনেক সময় শান্তিপূর্ণ হয়, অনেকসময় উত্তপ্ত হয়, বাকবিতণ্ডা হয়। আজকের (শনিবার) সভায়ও কিছু ‍উত্তেজনাকর বক্তব্য এসেছিল। কিন্তু আমরা সেগুলো সামাল দিয়ে সভার হ্যাপি এন্ডিং করেছি।’

এ বিষয়ে বক্তব্য জানার জন্য সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীকে বারবার ফোন দিয়েও সাড়া পাওয়া যায়নি।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

X