alo
ঢাকা, রবিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রেলওয়ে শ্রমিক লীগের আন্দোলন, রেলের চাকা বন্ধের হুঁশিয়ারি

প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৮:১২ পিএম

রেলওয়ে শ্রমিক লীগের আন্দোলন, রেলের চাকা বন্ধের হুঁশিয়ারি
alo

চট্টগ্রাম ব্যুরো:  বিভিন্ন জটিলতা নিরসনে ১০ দফা দাবি জানিয়েছে রেলওয়ে শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটি। তাদের দাবি বাস্তবায়িত না হলে রেলের চাকা বন্ধের হুঁশিয়ারিও দিয়েছে সংগঠনটি।

 

 

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. হুমায়ুন কবির ও সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমান আকন্দ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানানো হয়। এ সংক্রান্ত বিভিন্ন পোস্টার সাঁটানো হয়েছে।

দাবিগুলো হলো- নিয়োগবিধি ২০২০ সংশোধন করে ১৯৮৫ সালের মতো সব ধরনের নিয়োগ ও পদোন্নতি স্বচ্ছতার ভিত্তিতে সম্পন্ন করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা ও পোষ্য কোটাসহ সব কোটা নিশ্চিত করতে হবে। ব্লক পদগুলোতে পদোন্নতির ব্যবস্থা করতে হবে।

রেল কোড ভলিউমের মাধ্যমে রেল পরিচালনা করতে হবে। আইবাস++ এবং জিও সংক্রান্ত জটিলতা অবসান করে নির্ধারিত তারিখে শ্রমিক কর্মচারীদের বেতন ভাতা দিতে হবে।

সম বেতন ও সম স্কেলে আগের মতো পদবি পরিবর্তন করতে হবে। কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে যোগ্যতা অনুযায়ী ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণিতে নিয়োগ দিতে হবে। রানিং কর্মচারীদের মাইলেজ সংক্রান্ত জটিলতা অবিলম্বে নিরসন করতে হবে।

অপ্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে টাকা ব্যয় বন্ধ করে অবিলম্বে রেললাইন সংস্কার ও সব রেললাইন ডুয়েল গেজে রূপান্তর করতে হবে।

রেল প্রশাসনে ঘাপটি মেরে থাকা অসাধু কর্মকর্তাদের সব অপকর্ম তদন্তের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। রেলওয়ের সব হাসপাতাল আধুনিকায়ন করতে হবে এবং পিপিপির পরিবর্তে রেলওয়ে ব্যবস্থাপনায় হাসপাতাল পরিচালনা করতে হবে।  

টেন্ডারের নামে অপ্রয়োজনীয় ও নিম্নমানের মালামাল কিনে কোটি কোটি টাকা অপচয় করা চলবে না। অপচয় ও দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।  

আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ করতে হবে। গেটকিপারসহ কর্মরত সব অস্থায়ী ও টিএলআর কর্মচারীর চাকরি স্থায়ী করতে হবে।

সহজের পরিবর্তে রেলওয়ের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় টিকিট সিস্টেম পরিচালনা করতে হবে। অবিলম্বে সিবিএ, নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।

রেলওয়ে শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, শ্রমিকদের অধিকার সমুন্নত রাখতে আন্দোলন সংগ্রামের কোনো বিকল্প নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান শ্রমিকবান্ধব সরকারের আমলে আমরা কখনো ভাবতে পারিনি আমাদের অধিকার হরণ করা হবে কিংবা আন্দোলন সংগ্রামে যেতে হবে। স্মারকলিপি কিংবা আলোচনার আহ্বান, সব ধাপই আমরা সম্পন্ন করেছি কিন্তু সমাধান আসেনি। এখন আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। তাই বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগ ১০ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। অনতিবিলম্বে এ ১০ দফা মেনে নেওয়ার আহ্বান জানাই।

নিউজনাউ/একে/২০২২

X