alo
ঢাকা, রবিবার, ফেব্রুয়ারী ৫, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

'জাতীয় স্বার্থে কালুরঘাটে নতুন সেতু অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে'

প্রকাশিত: ০৯ নভেম্বর, ২০২২, ১০:০৮ পিএম

'জাতীয় স্বার্থে কালুরঘাটে নতুন সেতু অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে'
alo

 

চট্টগ্রাম ব্যুরো: অবিলম্বে  কালুরঘাট সেতু বাস্তবায়নের দাবিতে গণঅনশন করেছে চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরাম। বুধবার (৯ নভেম্বর)  বিকেলে চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা চত্বরে এই গণ-অনশন অনুষ্ঠিত হয়।গণঅনশন কর্মসূচীতে যোগ দেন চট্টগ্রামের সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এসময় বক্তারা বলেন, চট্টগ্রাম কর্ণফুলীতে প্রস্তাবিত কালুরঘাট নতুন সেতু অবিলম্বে বাস্তবায়ন জাতীয় স্বার্থে জরুরি। কিন্তু রহস্যজনক কারণে এ সেতু নির্মাণে গড়িমসি ও দীর্ঘসূত্রিতা চলছে প্রায় দশ বছর যাবত।

চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন বলেন, চট্টগ্রামবাসীর প্রাণের দাবী কালুরঘাট সেতু বাস্তবায়ন প্রতিশ্রুতির মধ্যেই ঝুলে আছে। অবিলম্বে চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক কালুরঘাট সেতু নির্মানের কাজ শুরু না হলে কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে। কালুরঘাটে একটি নতুন দ্বিমুখী সড়ক সুবিধাসহ রেলসেতু নির্মাণের দাবিতে গণমানুষকে সাথে নিয়ে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলা হবে। '

কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন  চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মহাসচিব  কামাল উদ্দিনের সঞ্চালনায়  লেখক ও গণমাধ্যমকর্মী কামরুল ইসলাম, সাংবাদিক মোস্তাফা নাঈম, কাজী গোলাপ রহমান, অধ্যাপক মোঃ ফরিদ আহমেদ, সম্মিলিত সামাজিক সংগঠনের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ এহসান,   সাংস্কৃতিক ও মানবাধিকারকর্মী নাসরিন সুলতানা তমাসহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন।

ব্যরিস্টার মনোয়ার বলেন, কালুরঘাট সেতুর পশ্চিম পাশ তথা শহর এলাকা থেকে বোয়ালখালী সদর গোমদণ্ডির দূরত্ব মাত্র তিন কিলোমিটার। নদীর এক পাড় থেকে অন্য পাড়ে যেতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যাত্রীদের অপেক্ষা করতে হয়। অথচ যানজট ছাড়া মাত্র ১০ মিনিটে এ ৩ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করা যায়। তাছাড়া ২০০১ সালে সেতুটিকে মেয়াদোত্তীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়। সেতুটিতে বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় গর্ত, যেখানে নিয়মিত বিভিন্ন যানবাহন ও ট্রাক আটকে পড়ে। অবস্থা এত ভয়াবহ যে বিভিন্ন গর্তের মধ্য দিয়ে নদীর পানি দৃশ্যমান। ঝুঁকি মাথায় নিয়ে দৈনিক প্রায় ১ লাখের অধিক লোক বিভিন্ন যানবাহন ও কয়েকজোড়া ট্রেনে সেতু অতিক্রম করছে। বোয়ালখালী, পূর্ব পটিয়া, দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়া, শহরের চান্দগাঁও ও মোহরা এলাকার প্রায় ২০ লাখ মানুষ এই সেতুর ওপর নির্ভরশীল।

এসময় বক্তব্য রাখেন বোয়ালখালী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো সেলিম, নাগরিক ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান শিল্পী শাহরীয়ার খালেদ, কাজী গোলাফ রহমান, কালুরঘাট সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের আহ্বায়ক আবদুল মোমিন, কালের কন্ঠের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান মুস্তফা নঈম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমেদ, ১৪ দলীয় মহাজোট নেতা ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি(ন্যাপ)’র মিটুল দাশগুপ্ত, নাগরিক ফোরামের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শেখ জাহেদ , অধক্ষ্য ফরিদ আহমদ, দক্ষিণ জেলা যুব ইউনিয়নের সভাপতি মিলন বড়ুয়া, বন্দর শ্রমিক নেতা মো ফোরকান, এডভোকেট মাসুদুল আলম বাবলু, গ্রেটার চট্টগ্রাম ইয়ুথ ফোরামের সভাপতি মির্জা ইমতিয়াজ শাওন, যুবনেতা সাজ্জাদ, সংগঠক নোমানুল্লাহ বাহার, বোয়ালখালী প্রেস ক্লাব এর নির্বাহী সদস্য আলমগীর রানা প্রমুখ।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

X