alo
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেভাবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে বিরতি নেবেন

প্রকাশিত: ০৮ আগস্ট, ২০২২, ০১:০৩ পিএম

যেভাবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে বিরতি নেবেন
alo

নিউজনাউ ডেস্ক: সামান্য সোশ্যাল মিডিয়াতে কিছু ভুল নেই। তবে যখন কয়েক সেকেন্ডের টিকটকগুলো ঘণ্টাব্যাপী মাথায় ঘোরাঘুরি করে বা ইনস্টাগ্রাম স্টোরিজগুলোতে কে কী পছন্দ করেছে, সেগুলো আপনার চিন্তাভাবনায় প্রভাব ফেলে অথবা ফেসবুকের নিউজফিডে আপনার চাচার রাজনৈতিক মতামতগুলো আপনার কাছে বিরক্তিকর মনে হয়, তখন বুঝে নিতে হবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে আপনার একটা বিরতি নেয়ার সময় এসেছে।

হ্যাঁ, একটি বিরতি। কারণ এসব পুরোপুরি ছেড়ে দেয়া সত্যিই অনেকের জন্য কোনো বিকল্প বা ইচ্ছা নয়। স্ক্রিন টাইমকে প্রাধান্য দেয় এমন অ্যাপগুলো থেকে এখনও অনেক কিছু শেখার বাকি আছে আমাদের। তবে স্ক্রলিংয়ে অনেক বেশি সময় দিয়ে মস্তিষ্ক এবং শক্তির ক্ষয় হলে হারানোরও অনেক কিছু আছে।

একটি সফল সামাজিক মিডিয়া বিরতি দৃষ্টিভঙ্গির ওপর নির্ভর করে। কিছু মানুষ একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য তাদের সব সামাজিক মিডিয়া প্রোফাইল নিষ্ক্রিয় করতে চাইতে পারে; অন্যরা কেবল কিছু সামাজিক মিডিয়া ফিচার সীমিত করতে চাইতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সোশ্যাল মিডিয়া থেকে আপনার উপকারী বিষয়গুলো নেয়া, যেগুলোতে কোনো উপকার নেই সেগুলো ছেড়ে দেয়া।

অন্য কথায়, আপনি কি পছন্দ করেন তা বের করুন। সঠিক সেটিংস খুঁজুন এবং নিচের টিপস অনুসরণ করুন।

আপনাকে কী বিরক্ত করছে তা খুঁজে বের করুন

আপনি কি অন্যদের জীবনযাপন দেখে খুব বেশি অভিভূত? অথবা আপনি কি অনলাইন শপিং থেকে বিরত আছেন? এমন অনেক কারণ আছে যেগুলো আপনাকে বিরতির পথে হাঁটতে প্ররোচিত করে। এসব খুঁজে বের করা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি বিরতি নেয়ার পরিকল্পনাতে আপনাকে সাহায্য করবে।

সামাজিকমাধ্যম বাছাই করুন

সমস্যাটি কী তা একবার আপনি জেনে গেলে, কোন কোন অ্যাপ থেকে বিরতি নিতে চান এবং প্রতিটিতে কোন ফিচারগুলো বন্ধ করতে বা চালিয়ে যেতে চান, তা বেছে নিতে পারেন৷

উদাহরণস্বরূপ, আপনি এখনও টিকটক ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনার বন্ধুরা আপনাকে যে ভিডিওগুলো পাঠায়, কেবল তা দেখুন। আপনি এখনও আপনার ইনস্টাগ্রাম ফিডে স্ক্রল করতে চান তবে আপনার নিজস্ব কিছু পোস্ট করবেন না। যদিও এই পরিবর্তনগুলো আপনার সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার পুরোপুরি বন্ধ করে না, তবে আপনার ব্যবহারকে কমিয়ে আনবে।

লক্ষ্য নির্ধারণ করুন

সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনার বিরতি কতদিন হবে তা নির্ধারণ করুন। এটি আপনাকে একটি লক্ষ্য দেয়। আপনি যদি জানেন ঠিক কত দিন বাকি আছে, তাহলে প্রতিটি দিন কাটানো কিছুটা সহজ হতে পারে। আপনি এটিকে নিজের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ হিসেবেও বিবেচনা করতে পারেন। সময় শেষ হলে সঙ্গে সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝাঁপিয়ে পড়বেন না, আপনি কেমন অনুভব করছেন তা পর্যবেক্ষণ করুন। আপনার আরও সময় প্রয়োজন কি না তা ভাবুন।

পোস্ট করা কমান

সোশ্যাল মিডিয়ার বেশির ভাগই সংযোগ স্থাপন, প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করা বা দেখতে চাওয়ার বিষয়ে। এসব সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়াই করা যায়।

ফেসবুকে কিছু শেয়ার করার পরিবর্তে, যাদের সঙ্গে আপনি সেই স্মৃতি তৈরি করেছেন, তাদের ফোন করুন। ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে আপনার খাবারের জুম-ইন ফটো পোস্ট করার পরিবর্তে, আপনি বেঁচে আছেন তা জানাতে আপনার মায়ের কাছে এটি চিঠি পাঠান।

অ্যাপগুলো মুছুন এবং বন্ধুকে আপনার পাসওয়ার্ড রাখতে বলুন

সোশ্যাল মিডিয়া বিরতিতে যাওয়ার ইচ্ছা সহজ হলেও, ব্যবহারের বাধ্যবাধকতার বিরুদ্ধে লড়াই করা কঠিন। এ জন্য আপনার ডিভাইসের যে অ্যাপগুলো ব্যবহার করতে চান না, সেগুলো মুছুন। কারণ এগুলো না থাকলে আপনি ব্যবহার করতে পারবেন না; যদি না আপনি একটি ব্রাউজারে সেগুলোর ওয়েবসাইট খোলেন। এটির প্রতিরোধে একজন বিশ্বস্ত বন্ধুকে আপনার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে বলুন। এতে চাইলেই আপনি আপনার অ্যাকাউন্টে আবার লগ ইন করতে পারবেন।

ছুটিতে যান অথবা আক্ষরিক অর্থে অন্য কিছু খুঁজে নিন

এটি কিছুটা বিপরীত, কারণ ছুটির চেয়ে কি পোস্ট করা ভালো? ডিভাইসের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া অন্য কিছু আপনাকে মনে করিয়ে দেবে যে স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়াও অন্য কিছু করার আছে আপনার। যদি ছুটিতে না যেতে পারেন তবে বই পড়ুন, ছবি আঁকেন অথবা রুবিক্স কিউব মেলান।

মনে রাখবেন: কেউ পাত্তা দেয় না

প্রত্যেকেই আমরা নিজের জীবনের প্রধান চরিত্র। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় ফলোয়ার আমাদের কাছে অনেক মূল্যবান। তবে আপনি নিজেকে যতটা ঘনিষ্ঠভাবে দেখেন, খুব কম মানুষই তা দেখে। তাই আপনার সোশ্যাল মিডিয়া বিরতি সম্ভবত আপনার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হবে।

তবে এটাও মনে রাখবেন: দূরত্ব হৃদয়কে অনুরাগী করে তোলে 


নিউজনাউ/এসকে/২০২২ 

X