alo
ঢাকা, শুক্রবার, ডিসেম্বর ৯, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশে বিনিয়োগ সম্প্রসারণে বড় পরিকল্পনা আদানি গ্রুপের

প্রকাশিত: ০৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:২৪ পিএম

বাংলাদেশে বিনিয়োগ সম্প্রসারণে বড় পরিকল্পনা আদানি গ্রুপের
alo


নিউজনাউ ডেস্ক: ভারতের শীর্ষ ধনী গৌতম আদানির মালিকানাধীন আদানি গ্রুপ বাংলাদেশে বিনিয়োগ সম্প্রসারণে বড় আকারের পরিকল্পনা সাজাচ্ছে। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, ভোজ্যতেল, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলসহ নানা খাতে বিনিয়োগ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। 
বাংলাদেশে তারা আগ্রহ দেখিয়েছে খাদ্য, বন্দর অবকাঠামোসহ আরও নানা খাতে। 

ইতোমধ্যে ভারত সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) রাতে দিল্লিতে সাক্ষাৎ করেছেন গৌতম আদানি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার আলোচনায় বাংলাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের বিষয়গুলো উঠে আসে। 

বাংলাদেশ, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিদ্যুৎ, পরিবহন, লজিস্টিকস, বন্দর, এয়ারপোর্ট, রেল, ভোজ্যতেল, আবাসন, আর্থিক খাতসহ বিভিন্ন খাতের ব্যবসায় যুক্ত রয়েছে আদানি গ্রুপ। বাংলাদেশে তাদের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ ১ হাজার ৬০০ মেগাওয়াট সক্ষমতার গড্ডা বিদ্যুৎকেন্দ্রে। এটি নির্মাণ করা হচ্ছে প্রায় ২ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে। বিদ্যুৎকেন্দ্রটি ভারতের ঝাড়খণ্ডে অবস্থিত হলেও এখানে উৎপাদিত বিদ্যুতের পুরোটাই বাংলাদেশে রফতানি করা হবে। 

দেশের ভোজ্যতেলের বাজারে শীর্ষস্থানীয় কোম্পানি বাংলাদেশ এডিবল অয়েল লিমিটেড (বিইওএল) প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৩ সালে। কোম্পানিটি রূপচাঁদা, ফরচুন, কিংস, মিজান ও ভিওলা ব্র্যান্ডের ভোজ্যতেল বিক্রি করে। বিইওএল শতভাগ বিদেশী মালিকানাধীন যৌথ উদ্যোগ। সিঙ্গাপুরের উইলমার ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড ও ভারতের আদানি গ্রুপ মিলে আদানি উইলমার নামে এ যৌথ উদ্যোগ গড়ে ওঠে। বিইওএলের যাত্রার সময় এতে আদানি উইলমারের বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৩০ কোটি ডলার।

চট্টগ্রামের মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি বিশেষ জোন নির্মাণের দায়িত্ব পেয়েছে আদানি গ্রুপ। এ প্রকল্পের উন্নয়নে গ্রুপটি ৮০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে। 

বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানটি। আবার খাদ্যপণ্যের ব্যবসায়ও আসার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে আদানি গ্রুপ। চাল প্রক্রিয়াজাত করে প্যাকেটজাত চাল বিক্রির পাশাপাশি রাইস ব্র্যান অয়েলের ব্যবসায়ও আসতে চায় তারা। বাংলাদেশে বন্দরের জেটি ও টার্মিনাল ব্যবস্থাপনার সঙ্গেও যুক্ত হওয়ার আগ্রহ দেখিয়েছে আদানি গ্রুপ। আদানি গ্রুপের পরিকল্পনাধীন এসব প্রকল্পে সম্ভাব্য বিনিয়োগের পরিমাণ হতে পারে ২ বিলিয়ন ডলার।

মিরসরাইতে ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য যে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের কাজ পেয়েছে আদানি গ্রুপ সেখানে অর্ধেক জমি আদানি গ্রুপ নিজেদের প্রতিষ্ঠানের জন্য সংরক্ষিত রাখবে। বাকি অর্ধেক অন্যান্য ভারতীয় বিনিয়োগকারীর জন্য উন্মুক্ত থাকবে। 

২০১৬ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ বিনিয়োগ সম্মেলনে আদানি গ্রুপের চেয়ারম্যান গৌতম আদানি ৮ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের ঘোষণা দেন। এর মধ্যে আগের প্রতিশ্রুত অর্থের সঙ্গে নতুন করে আরো ৩ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

আদানি গ্রুপ-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশের যেসব খাতে ব্যবসার ভালো সুযোগ রয়েছে সেখানেই বিনিয়োগে আগ্রহী তারা। এসব বিনিয়োগ পরিকল্পনার সম্ভাবনা যাচাইয়ে আদানি গ্রুপ বাংলাদেশ সরকার ও নীতিনির্ধারণী মহলের মনোভাব বোঝার চেষ্টা করছে। সবকিছু অনুকূল থাকলে এসব বিনিয়োগ পরিকল্পনা বাস্তব রূপলাভ করতে পারে। 

বিনিয়োগের দিক থেকে শীর্ষে হলেও আদানি গ্রুপ বাংলাদেশে বড় বিনিয়োগ নিয়ে এগিয়ে আসা প্রথম প্রতিষ্ঠান নয়। এর আগেও ভারতের রিলায়েন্স গ্রুপ ও ভারতী এয়ারটেল গ্রুপ এখানে বড় অংকের বিনিয়োগ করেছে। এর মধ্যে এলএনজি-ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে বিপিডিবির সঙ্গে নির্মাণ ও ক্রয় চুক্তি করে ভারতীয় ব্যবসায়ী অনিল আম্বানির কোম্পানি রিলায়েন্স পাওয়ার। চলতি মাসে রিলায়েন্স মেঘনাঘাট ৭৫০ মেগাওয়াট আইপিপি-২ নামে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদনে আসার কথা।

এছাড়া ভারতী এয়ারটেল দেশের টেলিযোগাযোগ খাতে বড় অংকের বিনিয়োগ নিয়ে এগিয়ে এসেছিল। তবে ব্যবসায় সুবিধা করতে না পেরে বাংলাদেশে এয়ারটেলের ব্যবসা রবি আজিয়াটার সঙ্গে একীভূত করেছে ভারতী এয়ারটেল।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

X