alo
ঢাকা, শনিবার, ফেব্রুয়ারী ৪, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাবনায় স্ত্রী হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশিত: ১৫ আগস্ট, ২০২২, ০৩:১৮ পিএম

পাবনায় স্ত্রী হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড
alo

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনায় যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী নাছিমা খাতুনকে হত্যার দায়ে স্বামী সিফাত আলীর মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সাথে মামলার তিন আসামিকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। রবিবার সকালে পাবনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মিজানুর রহমান এই রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সিফাত আলী চাটমোহর উপজেলার ধুলাউড়ি স্কুলপাড়া গ্রামের রব্বেল আলীর ছেলে। রায়ের সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আর নিহত নাছিমা খাতুন নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার ভিটাকাজিপুর গ্রামের আরদেশ প্রামানিকের মেয়ে। তাদের সংসারে একটি পুত্র ও একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, নাসিমার সাথে বিয়ের পর থেকেই সিফাত তার পরিবারের লোকজনের প্ররোচনায় নাসিমার পরিবারের কাছে ৩০ হাজার টাকা যৌতুক দাবী করে। যৌতুক না দেওয়ায় নাছিমা কে বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন করে আসছিল তার শ^শুর বাড়ির লোকজন। এরই এক পর্যায় ২০১৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর সকালে নাসিমাকে স্বামী সিফাত আলী পরিবারের লোকজনের সহায়তায় মারপিট করে। মারপিটের এক পর্যায় নাছিমা জ্ঞান হারিয়ে ফেললে সিফাত ও তার বাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা এসে মুমুর্ষ অবস্থায় নাছিমাকে উদ্ধার করে চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে ডাক্তার মৃত ঘোষনা করেন। 

এ ঘটনায় নাসিমার বাবা আরদেশ বাদী হয়ে চাটমোহর থানায় স্বামী সিফাত তার পিতাসহ ৫ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে মামলার তদন্তকারী  কর্মকর্তা চাটমোহর থানার ততকালীন এসআই সাইফুল ইসলাম ২০১৪ সালের ১৫ জানুয়ারি পাঁচজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। মামলা চলাকালে সিফাতের পিতা মামলার আসামী রব্বেল আলী মারা যাওয়ায় অভিযুক্ত অপর ৪ আসামীর বিরুদ্ধে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়া ও ৯ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে এ রায় দেয়া হয়। 
মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন ট্রাইবুনালের বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট খন্দকার আব্দুর রকিব আর আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ইতি হোসেন মুক্তি।
 
আসামি পক্ষের আইনজীবী বলেন রায়ে আমরা ক্ষুব্ধ। উচ্চ আদালতে আপিল করব। আশা করি সেখানে আসামি নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে খালাস পাবেন। 
মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বলেন, এটি একটি যুগান্তরকারী রায়। এর মাধ্যমে আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আশা করি খুব দ্রুত ফাঁসি কার্যকর করা হবে।

নিউজনাউ/এবি/২০২২

X