alo
ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ২, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঘাইছড়িতে দুই পক্ষের গোলাগু‌লি, হতাহতের আশংকা

প্রকাশিত: ২৬ আগস্ট, ২০২২, ০৪:৫০ পিএম

বাঘাইছড়িতে দুই পক্ষের গোলাগু‌লি, হতাহতের আশংকা
alo


রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি: আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাঙ্গামাটির রাঙ্গামাটির পাহাড়ি জনপদ। রাঙ্গামাটি বাঘাইছড়ি উপজেলার বঙ্গলতলী ইউনিয়নের উত্তর জারুলছড়ি দুলুবনিয়া এলাকায় পাহাড়ি আঞ্চলিক দুই সশস্ত্র সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) ও জনসংহতি সমিতি( জেএসএস) এর মধ্যে ভয়াবহ বন্দুক যুদ্ধ সংগঠিত হয়েছে। এই নিয়ে গত দুই দিনের ব্যবধানে রাঙ্গামাটি জেলার লংগদু ও বাঘাইছড়িতে আঞ্চলিক সংগঠন দুটির মধ্যে ব্যাপক গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার (২৬ আগস্ট) ভোর পাঁচটায় গুলাগুলি শুরু হয়ে আনুমানিক দুই ঘণ্টা এই বন্দুক যুদ্ধ চলে। এতে উভয় পক্ষই শত শত রাউন্ড গুলি বিনিময় করে। 

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে উভয় পক্ষের ৩ সদস্য নিহতের সংবাদ ছড়িয়ে পরলেও ঘটনাস্থল দুর্গম হওয়ায় নিরপেক্ষ ভাবে নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ। তবে এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পাহাড়ে এক ব্যক্তির মরদেহ পরে থাকার ছবি চোখে পরছে। এতে করে বাঘাইছড়ির উপজেলার বঙ্গলতলী, জারুলছড়িসহ বেশ কয়েকটি পাহাড়ি গ্রামে সাধারণ জনগণের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। এই অবস্থায় আবারো উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে পার্বত্য অঞ্চলের পাহাড়ি সব কয়টি এলাকায়। আঞ্চলিক দল গুলো তাদের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বন্দুকযুদ্ধে লিপ্ত হয়ে পাহাড়ের মানুষের নাভিশ্বাস তুলছে।

বাঘাইছড়ি থানার উপ পরিদর্শক এসআই সাইদ আসাদ বলেন আমরা জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে গুলাগুলির সংবাদ পেয়েছি এতে দুই পক্ষ হাজার খানিক গুলি বিনিময় করেছে। তিনজন নিহত হয়েছে শুনেছি। থেমে থেমে এখনো গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে।  সেনাবাহিনীর সহায়তায় আমরা ঘটনা স্থলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি পরে বিস্তারিত জানতে পারবো। নিরাপত্তা বাহিনী সতর্ক অবস্থায় রয়েছে, টহল জোরদার করা হয়েছে।

তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর দুটি টিম বঙ্গলতলীসহ বিভিন্ন স্থানে গিয়ে খোঁজ খবর নিলেও কোথাও কোন লাশের খবর পাওয়ায় নি। তবে স্থানীয়রা বলেন, বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। ভোর ৫ টা থেকে ২ ঘণ্টার বেশী সময় ধরে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। 

এদিকে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনার এলাকা থেকে গ্রামবাসী পালিয়ে গেছে। বাড়ী ঘরে তালা দিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে স্থানীয় গ্রামবাসী। নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে বাড়ী ঘরে কাউকে দেখতে পায়নি। 

তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আজ বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় ৩ জনের প্রাণ হানীর খবর ছাড়িয়ে পড়লেও রাঙ্গামাটির নিরাপত্তা বাহিনীর কোন সুত্র বা কোন সংস্থা হতাহতের কোন খবর নিশ্চিত করতে পারেনি। এছাড়া গত ২৩ তারিখ সন্ধ্যায় লংগদু উপজেলায় ৬ জন নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লেও ১ জন শ্যামল চাকমার মৃত্যু খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। এই সকল বিভ্রান্তিকর তথ্যে কারণে সাধারণ মানুষের মাঝে উৎকণ্ঠ বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট মহল জানান। 

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

X