alo
ঢাকা, সোমবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভালো নেই টাঙ্গাইলের তাঁত মালিকরা

প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৩:১১ পিএম

ভালো নেই টাঙ্গাইলের তাঁত মালিকরা
alo

 

খাদেমুল ইসলাম মামুন, টাঙ্গাইল থেকে: টাঙ্গাইলের তাঁত মালিকরা কোনোভাবেই লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারছেন না। একের পর এক সমস্যায় পড়ে পুঁজি হারিয়ে এরই মধ্যে প্রায় ৫০ শতাংশ তাঁত বন্ধ হয়েছে। অনেকে ধারদেনা করে নতুন করে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেও আবারো সুতার দামবৃদ্ধি ও লোডশেডিংয়ে উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় তাদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। অন্যদিকে শ্রমিকদের ব্যয়ের তুলনায় আয় কমেছে। ফলে সংশ্লিষ্ট সবাই বেকায়দায় পড়েছেন। তাই তাঁত শিল্পের প্রতি সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছেন তারা।

তাঁত পল্লিতে বিরামহীন তাঁতের খট খট শব্দ থাকার কথা থাকলেও বেশিরভাগ তাঁত বন্ধ হওয়ায় সেখানে এখন শুনশান নীরবতা। দীর্ঘদিন তাঁত বন্ধ থাকায় মরিচা ধরে নষ্ট হচ্ছে লাখ লাখ টাকার যন্ত্রপাতিও।

করোনা মহামারি যেন তাঁত শিল্পের জন্য একটি অভিশাপ হয়ে এসেছিল। সেসময় বেশির ভাগ তাঁত মালিক বড় অঙ্কের লোকসানে পড়েন। প্রায় ৭৫ শতাংশ তাঁত বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। বন্ধ হওয়া ২৫ শতাংশ তাঁত মালিকরা পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন ব্যাংক ও এনজিও থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে তাঁতগুলো চালু করলেও আগের লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারছেন না। বর্তমানে সুতার দামবৃদ্ধি ও লোডশেডিংয়ের কারণে তাদের আবার লোকসান গুনতে হচ্ছে।

এদিকে, উৎপাদন খরচ বেশি হলেও বেশি দামে শাড়ি বিক্রি করতে পারছেন না মালিকরা। অপরদিকে, লোডশেডিংয়ের কারণে শ্রমিকদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অলস সময় কাটতে হচ্ছে। এতে তাদের আয়ও কমে গেছে।

তাঁত শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাই লোকসানের সম্মুখীন। সবারই টালমাটাল অবস্থা। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম যেভাবে বেড়েছে, তাতে এই খাতের শ্রমিকদের আয় দিয়ে পরিবার পরিজনের মুখে তিনবেলা আহার তুলে দেয়া খুবই কষ্টের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই তাঁত মালিকদের পাশাপাশি শ্রমিকরাও এ শিল্পের প্রতি সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

তাঁত মালিকরা জানান, করোনায় লাখ লাখ টাকা লোকসান কাটিয়ে উঠতে নতুন করে ধারদেনা করে কাপড় উৎপাদন শুরু করতে গিয়ে আবারও তারা নতুন ঋণে জর্জরিত হয়ে পড়েছেন।

এই শিল্প সরকারী নজরদারি ছাড়া টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না বলেও মনে করছেন তারা।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল জেলা তাঁত মালিক সমিতির সভাপতি রগুনাথ বসাক নিউজনাউকে বলেন, একদিকে নানা কারণে আগের চেয়ে শাড়ি কাপড়ের চাহিদা কমে গেছে। অন্যদিকে সুতা ও কাঁচামালের দাম বাড়ায় উৎপাদন খরচ বাড়লেও শাড়ির দাম বাড়েনি।

উল্লেখ্য, দুই বছর আগেও টাঙ্গাইলে ৫০ হাজার তাঁতে এক লাখের বেশি শ্রমিক কাজ করতেন। বর্তমানে জেলায় মাত্র ১০ থেকে ১৫ হাজার তাঁত চলমান রয়েছে। এতে মাত্র ২০ হাজার শ্রমিক কাজ করছেন।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

X