alo
ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ২, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইয়াসমিন ট্র্যাজেডি দিবস আজ: কেমন আছে তাঁর পরিবার

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট, ২০২২, ১০:২৫ এএম

ইয়াসমিন ট্র্যাজেডি দিবস আজ: কেমন আছে তাঁর পরিবার
alo

 


নিউজনাউ ডেস্ক: আজ ২৪ আগস্ট, ইয়াসমিন ট্র্যাজেডি দিবস। ১৯৯৫ সালের এই দিনে কতিপয় বিপথগামী পুলিশ সদস্য কর্তৃক ধর্ষণ ও হত্যার শিকার হয় কিশোরী ইয়াসমিন। এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে দিনাজপুরের মানুষ। বিক্ষুব্ধ জনতার ওপর নির্বিচারে গুলি চালায় পুলিশ। পুলিশের গুলিতে নিহত হয় সাতজন। সেদিন থেকেই সারাদেশে এই দিবসটি পালিত হচ্ছে ‘নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস’ হিসেবে।

১৯৯৫ সালের ২৪ আগস্ট মাকে দেখার জন্য দীর্ঘ দিন পর ঢাকা থেকে দিনাজপুরে বাড়ি ফিরছিল কিশোরী ইয়াসমিন। রাতে কাহারোল উপজেলার দশমাইল মোড়ে বাস থেকে নামে কিশোরী ইয়াসমীন। সেখানে একটি চায়ের দোকান থেকে কতিপয় বিপথগামী পুলিশ তাদের ভ্যানে করে জোরপূর্বক নিয়ে যায় কিশোরী ইয়াসমিনকে। তারা ভ্যানের ভেতরেই ইয়াসমিনকে ধর্ষণ করে হত্যা করেন।

পরে তার মরদেহ দিনাজপুর শহরে ঢোকার আগে রানীগঞ্জ মোড়ের ব্র্যাক অফিসের সামনে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে যায়। লাশ পাওয়ার পরের দিন প্রথমে দশমাইল এলাকায় প্রতিবাদ সমাবেশ হয়। পরে তা ধীরে ধীরে আন্দোলনে রূপ নেয়। আন্দোলনের এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ জনতাকে দমাতে পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালায়। পুলিশের গুলিতে নিহত হয় সাতজন। গুলিবিদ্ধ হয় আরও অনেকে।

আন্দোলনের মুখে ইয়াসমিন ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় করা তিন মামলা আদালতে ১২৩ দিন বিচার কাজ শেষে ১৯৯৭ সালের ৩১ আগস্ট রংপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালত আব্দুল মতিন রায় ঘোষণা করেন। উপ-সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) মঈনুল, কনস্টেবল আব্দুস সাত্তার ও পুলিশের পিকআপ ভ্যানচালক অমৃত লাল বর্মনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ বিধান ‘৯৫-এর ৬ (৪) ধারায় ধর্ষণ ও খুনের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাদের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুর আদেশ দেন।

এ ছাড়া আলামত নষ্ট, সত্য গোপন ও অসহযোগিতার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় উপ-সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) মঈনুলকে আরও পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

ঘটনার ২৭ বছর পার হলেও সেদিনের কথা মনে করে এখনো কান্না করেন ইয়াসমিনের মা শরিফা বেগম। তিনি বলেন, আমার তো আর চাকরির বয়স নেই। এখন ইচ্ছা করলেও সরকার আমাকে চাকরি দিতে পারবে না। স্বামী কয়েল বিক্রি করে সংসার চালায়। আমার একটি ছেলে দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ে। সংসারে অভাব-অনটন লেগেই আছে। সরকার যদি একটা জমির বন্দোবস্ত করে একটি ছাগল কিংবা মুরগির খামার করে দিতেন, তাহলে স্বামী-সন্তানকে নিয়ে ভালোভাবে সংসার চালাতে পারতাম।

তবে পুলিশের ফাঁসি হলেও সে সময় যারা আমার মেয়েকে ধর্ষণ ও হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে গুলি খেয়ে মারা গেছে এবং আহত হয়েছে তারা এখনো বিচার পায়নি। আমার মেয়ে ধর্ষণ এবং হত্যার যেমন বিচার হয়েছে, তেমনি যারা আমার মেয়ের জন্য জীবন দিয়েছে, তাদের হত্যাকারীদেরও বিচার চাই।

সেসময় বিরোধী দলে থাকা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইয়াসমিন আন্দোলনকে আরও বেগবান করেছিলেন। তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে একটি আলাদা ট্রাইব্যুনাল গঠন করে দ্রুত বিচারকাজ সম্পন্ন করা সময়ের দাবি বলে জানালেন ইয়াসমিন ধর্ষণ ও হত্যা আন্দোলনের অন্যতম নেতা ও দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।

ইয়াসমিনের স্মরণে দিনাজপুরের দশ মাইল এলাকায় জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির পরিকল্পনায় তৈরি করা হয়েছে ইয়াসমিন সরণী। পাশে তৈরি হয়েছে, ইয়াসমিন যাত্রী ছাউনি ও পাঠাগার। এ ঘটনায় সম্মিলিত নারী সমাজের পক্ষ থেকে ‘২৪ আগস্ট নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ২৪ আগস্ট এই দিনটি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালন করে আসছে বিভিন্ন সংগঠন।

দিবসটি উপলক্ষে নিহত ইয়াসমিনের মা শরিফা বেগম তার গোলাপবাগ নিজ বাড়িতে কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছেন। এছাড়াও মহিলা পরিষদ জেলা শাখা দিনাজপুরের ইয়াসমিন চত্বরে (দশমাইল মোড়) মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে। বেশ কিছু নারী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়াসমিনের কবর জিয়ারত, দিনব্যাপী দোয়া-মাহফিল, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে।

নিউজনাউ/এবি/২০২২
 

X