alo
ঢাকা, মঙ্গলবার, অক্টোবর ৪, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারত-ভিয়েতনাম থেকে চাল কিনছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ৩১ আগস্ট, ২০২২, ০৭:৪৮ পিএম

ভারত-ভিয়েতনাম থেকে চাল কিনছে বাংলাদেশ
alo

নিউজনাউ ডেস্ক: ভারত ও ভিয়েতনাম থেকে দুই লাখ ৩০ হাজার টন চাল আমদানি করা হবে। এতে খরচ হবে এক হাজার ১৩০ কোটি ৬৯ টাকা। বুধবার (৩১ আগস্ট) সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদন দেওযা হয়।

জানা গেছে, ভারত থেকে জিটুজি পর্যায়ে একলাখ টন নন-বাসমতি সিদ্ধ চাল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৪১৭ কোটি পাঁচ লাখ টাকা। ৭০ হাজার টন লটের চাল আসবে পোর্টের মাধ্যমে। এর ফলে প্রতিকেজি চালের দাম পড়বে ৪২ টাকা ১৩ টাকা। ৩০ হাজার টন লটের ল্যান্ডের মাধ্যমে আসবে। এতে প্রতি কেজি চালের দাম পড়বে ৪০ টাকা ৭০ টাকা। প্রতিটন চালের দাম পড়বে ৪৪৩ দশমিক ৫০ মার্কিন ডলার।

এছাড়া ভিয়েতনাম থেকে জিটুজি পর্যায়ে দুই লাখ টন থাই নন-বাসমতি চাল এবং ভারত থেকে ৩০ হাজার টন আতপ  চাল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। দুটি মিলে একত্রে দুই লাখ ৩০ হাজার টন চাল আমদানি করা হবে। নন-বাসমতি চাল প্রতি কেজি ক্রয়মূল্য ৪৯.৪৯৫ টাকা এবং আতপ চাল ৪৬.৯৩ টাকা। সুপারিশকৃত দরদাতা প্রতিষ্ঠান হচ্ছে— ভারতের সেন্ট্রাল গভর্মেন্ট কনজুমার করপোরেশন সোসাইটি লিমিটেড দিল্লি, সেখান থেকে ক্রয় করা হবে। নন-বাসমতি প্রতিটন ৫২১ মার্কিন ডলার। ৩০ হাজার টন আতপ  চাল প্রতিটন ৪৯৪ মার্কিন ডলার। মোট এক কোটি ২৮ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। সর্বমোট দুই লাখ ৩০ হাজার টন চাল আমদানিতে খরচ হবে ১১ কোটি ৯০ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমান এক হাজার ১৩০ কোটি ৬৯ টাকা।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আব্দুল বারিক সাংবাদিকদের এ সব তথ্য জানান।

আব্দুল বারিক জানিয়েছেন,  ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও গম আমদানিতে সংকটে পড়ে। এরই মধ্যে গত মে মাসে বাংলাদেশে গমের সবচেয়ে বড় সরবরাহকারী দেশ ভারত রফতানি বন্ধ করে দিলে সংকট আরও ঘনীভূত হয়।

তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্বের ২৪টি ব্যাংকের মাধ্যমে ডলার দিয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে খাদ্যশস্য ও সার আমদানি করতে পারবো, এ ধরনের আমদানিতে কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই।’

নিউজনাউ/এসকে/২০২২ 

X