alo
ঢাকা, শনিবার, ফেব্রুয়ারী ৪, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুই বছর পর জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডে থাকছেন সজীব ওয়াজেদ

প্রকাশিত: ১১ নভেম্বর, ২০২২, ০৪:০২ পিএম

দুই বছর পর জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডে থাকছেন সজীব ওয়াজেদ
alo

নিউজনাউ ডেস্ক: দেশ ও মানুষের কল্যাণে যেসব তরুণ উদ্যোক্তা ও সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে তাদের উৎসাহ দিতে ষষ্ঠবারের মতো শনিবার (১২ নভেম্বর) ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ দিতে যাচ্ছে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)-এর অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইয়াং বাংলা। দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাওয়া তরুণ উদ্যোক্তা ও সংগঠনের হাতে চলতি বছর পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা এবং সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) চেয়ারপারসন সজীব ওয়াজেদ জয়। এর মাধ্যমে দুই বছর পর আবারও সরাসরি এবারের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন তিনি।

এ বছর ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সীদের সংগঠন যারা নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার, প্রতিবন্ধীদের ক্ষমতায়ন, পিছিয়ে পড়া মানুষের ক্ষমতায়ন, কর্মসংস্থান ও উদ্ভাবন, সৃজনশীলতা ও বিনোদন, জ্ঞান ও সক্ষমতা বিকাশ, অতি দরিদ্র মানুষের ক্ষমতায়ন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন, স্বাস্থ্যসেবা, সামাজিক-সাংস্কৃতিক উদ্যোগ, দুর্যোগঝুঁকি হ্রাস ও জরুরি সাড়া দিয়েছে, তারা ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ পাচ্ছেন।

ইয়াং বাংলা জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় দেশ গঠনে এগিয়ে আসা তরুণদের জন্য প্রতিষ্ঠা করেন তারুণ্যের সর্ববৃহৎ প্ল্যাটফর্ম ইয়াং বাংলা। তরুণদের দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করতে এবং দেশ গঠনে এগিয়ে আসতে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড, জয় বাংলা কনসার্ট, পলিসি ক্যাফেসহ তরুণদের কাছে জনপ্রিয় নানা কার্যক্রম পরিচালনা করে ইয়াং বাংলা। এক লাখের বেশি তরুণকে নিয়ে তৈরি ইয়াং বাংলার নেটওয়ার্ক। 'কানেক্টিং দ্য ডটস' স্লোগান নিয়ে যাত্রা শুরু করা ইয়াং বাংলা বর্তমানে তারুণ্যের সবচাইতে বড় প্ল্যাটফর্ম। ১৫ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী এবং ৫০০টির বেশি সংগঠনকে সঙ্গে নিয়ে ইয়াং বাংলার পথচলা।


জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেই 'সোনার বাংলা' গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেই স্বপ্ন পূরণের চেষ্টাই করছেন তার দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয়। ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেতবুনিয়ায় ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের মাধ্যমে যেই স্বপ্নের সূচনা করেন, সেই স্বপ্ন পূরণ হয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে কক্ষপথে উৎক্ষেপণের মাধ্যমে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এর পেছনে বড় অবদান রাখেন।


আওয়ামী লীগ ২০০৮ সালে নির্বাচনি ইশতেহারে যে ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার কথা বলে, তা বাস্তবায়নে সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব দেওয়া হয় সজীব ওয়াজেদ জয়কে। বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস বিপর্যয়ের সময় ডিজিটাল রূপান্তরের সেবা পেয়েছে বাংলাদেশ। টেলিমেডিসিন, ভার্চুয়াল কোর্ট, মোবাইল প্ল্যাটফর্ম এবং ই-কমার্সের মাধ্যমে দরিদ্র মানুষের কাছে অর্থ সরবরাহসহ ডিজিটাল কার্যক্রমের বিস্তৃতির মধ্য দিয়ে অর্থনীতি এগিয়ে গেছে। 

আওয়ামী লীগের সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) চেয়ারপারসন হিসেবে জয় পরবর্তী প্রজন্মকে প্রযুক্তিগতভাবে সক্ষম করে তুলতে চান। আর এভাবেই দেশ গঠনে এবং বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরে দেশের তরুণরা ভূমিকা রাখবে বলে বিশ্বাস করেন তিনি। এ কারণেই তরুণদের সঙ্গে বেশ কিছু ইন্টারঅ্যাক্টিভ কার্যক্রম সিআরআই ও ইয়াং বাংলার মাধ্যমে পরিচালনা করেন সজীব ওয়াজেদ জয়। তার ইচ্ছায় ও একান্ত প্রচেষ্টায় নিয়মিত আয়োজিত হচ্ছে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড, জয় বাংলা কনসার্ট, লেটস টক, পলিসি ক্যাফে, ইন্টার্ন প্রোগ্রামসহ আরও বিভিন্ন কার্যক্রম।

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে তরুণদের সেসব উদ্যোগকে অনুপ্রেরণা দেওয়া হচ্ছে, যা নীরবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে বৈপ্লবিক কাজ করছে। সেটি ঢাকার পথশিশুদের শিক্ষিত করা থেকে শুরু করে সিলেটের দরিদ্র ও দুর্বল চা শ্রমিক সম্প্রদায়কে সাহায্য করা বা নারী নিরাপত্তা থেকে শুরু করে ট্রান্সজেন্ডারদের সক্ষম ও ক্ষমতায়ন পর্যন্ত বিস্তৃত। এই সংগঠনগুলোর কার্যক্রম জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডে স্বীকৃতি অর্জনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর নজরে আসে, যার স্বীকৃতিস্বরূপ পরবর্তী সময়ে অনেক তরুণদের সংগঠন অর্জন করে আন্তর্জাতিক পুরস্কার।

 

নিউজনাউ/এসএইচ/২০২২
 

X