alo
ঢাকা, শনিবার, ডিসেম্বর ১০, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডিম আমদানির জন্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে বাণিজ্যের চিঠি

প্রকাশিত: ১৬ নভেম্বর, ২০২২, ১২:৫৪ পিএম

ডিম আমদানির জন্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে বাণিজ্যের চিঠি
alo


নিউজনাউ ডেস্ক: ভারত থেকে ৫১ কোটি ডিম আমদানি করতে চান আমদানিকারকেরা। এ জন্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে সম্প্রতি চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে বৈশ্বিককারণে পোলট্রি খাদ্য মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে ডিমের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে ডিম আমদানির বিষয়টি গুরুত্ব দিচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এরই ধারাবাহিকতায় ডিম আমদানির অনুমতি চেয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশের প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্যমতে দেশে প্রতিদিন প্রায় ৪ কোটি পিস ডিম উৎপাদিত হয়। এর মধ্যে ৯-১২ শতাংশ কর্পোরেট পোল্ট্রি ফার্ম এবং বাকি ডিম উৎপাদিত হয় গ্রামাঞ্চলের প্রান্তিক খামারিদের মাধ্যমে। অন্যদিকে দেশের ডিমের দাম বাড়তির অজুহাত ও সরবরাহ ঘাটতির ধোঁয়া তুলে প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে ৫১ কোটি ডিম আমদানির পাঁয়তারা করছে একটি ব্যবসায়ী চক্র।

ডিমের দাম কমাতে ডিম আমদানি নিয়ে চলতি বছরের আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে কথা বলেছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। এক সংবাদ সম্মেলনের ডিম আমদানির প্রসঙ্গ তুলে এনেছিলেন। এসময় তিনি বিষয়টাকে আলোচনা সাপেক্ষ ব্যাপার বলে উল্লেখ করেছিলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভারতের ডিম অপেক্ষাকৃত ছোট। যার গড় ওজন ৪০-৫০ গ্রাম। আর বাংলাদেশে উৎপাদিত ডিমের গড় ওজন প্রায় ৬৫-৭০ গ্রাম। ভারত থেকে ডিম আমদানি করা হলে গড়ে ডিম প্রতি সর্বোচ্চ ১ টাকা কমতে পারে।

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দু-তিন মাসের মধ্যে কমে যাবে। তবে খামারিদের কথা বিবেচনায় রেখে ডিম আমদানি করা উচিত হবে না।

ডিমের দাম প্রসঙ্গে সম্প্রতি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ডিমের দাম বেড়েছে, এর পেছনে অন্যতম কারণ হলো খাবারের দাম বেড়েছে। প্রতি পিস ডিমে যে পরিমাণ খরচ হয়, ব্যবসায়ীদের তো সেটি হিসাব করেই বিক্রি করতে হবে। তারা তো দিনের পর দিন লস দিয়ে বিক্রি করতে পারবে না। আমরাও তাদের এই খাত থেকে হারিয়ে যেতে দেবো না।

এসময়ে তিনি আরো বলেছিলেন, অতি মুনাফা লোভীদের আমরা ছাড় দেবো না। এটি নিয়ে আমরা কাজ করছি। আমরা গণমাধ্যমের সহযোগিতা চাই। তারা যদি বর্তমান বাজার ও ডিম উৎপাদনকারীদের খরচ তুলনামূলকভাবে বিশ্লেষণ করে মানুষের মধ্যে প্রচার করে, তাহলে এটা নিয়ে কোনো বিশৃঙ্খলা থাকবে না।

সম্প্রতি বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিলের (বিপিআইসিসি)সভাপতি মসিউর রহমান বলেন, বিশ্বজুড়ে পশুখাদ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। যার প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। বর্তমানে একটি ডিম উৎপাদনে খরচ হয় সাড়ে ১০ টাকা। ভোক্তাপর্যায়ে আরো দাম বৃদ্ধি পায়। এতে করে আমরা ডিম উৎপাদনকারীরা সরকারি নানা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নাজেহাল হচ্ছি। এবিষয়ে তিনি সরকারের সহায়তা চেয়েছিলেন।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

X