alo
ঢাকা, সোমবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১৭ নেতার মধ্যে ফটিকছড়ির পেয়ারুলকেই বেছে নিলো আ.লীগ

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৯:৩৩ পিএম

১৭ নেতার মধ্যে ফটিকছড়ির পেয়ারুলকেই বেছে নিলো আ.লীগ
alo

চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ আসন্ন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ফটিকছড়ির এটিএম পেয়ারুল ইসলামকে মনোনয়ন দিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। তিনি উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি  হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি ফটিকছড়ির সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সভায় চট্টগ্রামের সঙ্গে বাকি ৬০ জেলা পরিষদের প্রার্থীও চূড়ান্ত করা হয়। 

তথ্য মন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা এমরুল করিম রাশেদ নিউজনাউকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের বর্তমান প্রশাসক এম এ সালামসহ চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের ১৬ নেতাকে পেছনে ফেলে এই মনোনয়ন পান ফটিকছড়ির এই বর্ষীয়ান নেতা।

এর আগে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা বলছেন, অতীতের ন্যায় এবারও ত্যাগী, যোগ্য, জ্যেষ্ঠ ও দলের জন্য নিবেদিত এমন নেতাদের ওপর জেলা পরিষদ নির্বাচনে আস্থা রাখবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পেয়ারুলকে মনোনয়ন দেওয়ার মধ্যে দিয়ে সেই কথার বাস্তবায়ন হলো।

চট্টগ্রাম থেকে মনোনয়নপত্র নিয়ে জমা দিয়েছিলেন জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ সালাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আবুল কালাম চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম এহেছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও পটিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক মো. মাঈনুদ্দিন, সহ-সভাপতি এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি লায়ন শামসুল হক, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. ইদ্রিস, রূপালী ব্যাংকের পরিচালক ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আবু সুফিয়ান, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা মঞ্চের মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ইউনুছ, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের সাবেক মহাসচিব আবুল হাশেম, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা আবু সাঈদ, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ রবি, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ দাশ, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রশিদ ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা মো. ওসমান গণি চৌধুরী।

প্রসঙ্গত এর আগে ২০১৬ সালের  ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ সালাম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। জেলা পরিষদের নির্বাচনের আগে তিনি জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করেন। এবারও তিনি প্রশাসকের দায়িত্ব পেয়েছিলেন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ১৭ অক্টোবর। ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র দাখিল, বাছাই ১৮ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের বিরুদ্ধে আপিল দায়েরের সময় ১৯ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর এবং ২২ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আপিল নিষ্পত্তি করা হবে। ২৫ সেপ্টেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময়। ২৬ সেপ্টেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

X