alo
ঢাকা, শনিবার, ডিসেম্বর ১০, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাকা চৌধুরীর বাড়ির ফটকে আবারও লেখা হলো 'রাজাকার বাড়ি'

প্রকাশিত: ১৭ নভেম্বর, ২০২২, ১২:৪১ এএম

সাকা চৌধুরীর বাড়ির ফটকে আবারও লেখা হলো 'রাজাকার বাড়ি'
alo

 

চট্টগ্রাম ব্যুরো: একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসি কার্যকর হওয়া সালাহউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর বাড়ির বাসভবনের ফটকে আবারও ‘রাজাকার বাড়ি’ লিখে দেশের সব যুদ্ধাপরাধীদের বাড়ির সামনে ‘রাজাকার বাড়ি’ লেখার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। একাত্তরের ‘টর্চার ক্যাম্প’ গুডস হিলের দেয়ালে লেখা হয়েছে- ‘বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর নির্যাতন কেন্দ্র’।

বুধবার (১৬ নভেম্বর) বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম বিভাগের জেলা কমান্ডাররা গণি বেকারি মোড়ে যুদ্ধাপরাধী বাবা-ছেলে ফজলুল কাদের চৌধুরী ও সালাহউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর বাসভবনের সামনে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমাণ্ডের এক কর্মসূচি থেকে আবারও এমনটি লেখা হয়।

এর আগে ২৮ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমাণ্ডের এক কর্মসূচি থেকে ওই বাড়ির ফটকে ‘রাজাকার বাড়ি’ লেখা হয়েছিল। পরে ওই রাতেই কে বা কারা সেটি মুছে ফেলে এবং সেখানে টাঙানো ‘রাজাকার হিল’ সাইনবোর্ডটি খুলে ফেলা হয়।

গত ১২ অক্টোবর বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে সাকা চৌধুরীকে শহীদ উল্লেখ করেন তাঁর ছেলে বিএনপি নেতা হুম্মাম কাদের চৌধুরী। এর প্রতিবাদে ২৯ অক্টোবর গুডস হিলকে 'রাজাকার হিল' আখ্যা দিয়ে ব্যানার টানিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা।

আবার নতুন করে 'রাজাকার বাড়ি' লেখার আগে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে গুডস হিলে যান মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কমান্ডের সদস্যরা। সেখানে তাঁরা সড়ক অবরোধ করে সমাবেশ করেন। সমাবেশে চট্টগ্রাম মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডার মোজাফফর আহমেদ বলেন, লেখা মুছে দিলে রাজাকারের বাড়ি এবার আমরা গুঁড়িয়ে দেব।

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করে হুম্মাম কাদের চৌধুরীকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান চাঁদপুর জেলা কমান্ডার এম এ ওয়াদুদ। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মাহবুবুল ইসলাম বলেন, 'রাজাকার বাড়ি' মুছে দেওয়ার সাহস তাদের কীভাবে হয়।

সংগঠনটির নগর কমিটির আহ্বায়ক সাহেদ মুরাদ সাকুর সভাপতিত্বে ও জেলার সদস্য সচিব কামরুল হুদা পাভেলের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার এ কে এম সরোয়ার কামাল দুলু, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আল মামুন ও সহসভাপতি সরওয়ার আলম চৌধুরী মণি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা ও সাকার মামলার সাক্ষী কাজী নুরুল আবছারসহ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের বিভিন্ন জেলার দায়িত্বশীলরা।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

X