alo
ঢাকা, শনিবার, জানুয়ারী ২৮, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে ইঞ্জি. মোশাররফের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর সফল জনসভা, লক্ষ্য এবার কক্সবাজার

প্রকাশিত: ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:০৬ পিএম

চট্টগ্রামে ইঞ্জি. মোশাররফের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর সফল জনসভা, লক্ষ্য এবার কক্সবাজার
alo

 

চট্টগ্রাম ব্যুরো: দীর্ঘ ১০ বছর পর চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে ৪ ডিসেম্বর। চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের অভিভাবক ও দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এমপি'র নেতৃত্বে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলার আয়োজনে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে এই জনসভা সফল প্রায় সব দিক থেকেই। দুই ধারায় বিভক্ত চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগের রাজনীতিকে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা উপলক্ষে এক সুতায় এনেছেন ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ।

তাঁর লক্ষ্য এবার চট্টগ্রাম বিভাগের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জেলা শহর কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সফল করা। আগামীকাল বুধবার (৭ ডিসেম্বর) পাঁচ বছর পর এক দিনের সফরে কক্সবাজারে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিন সকালে বঙ্গোপসাগরে অনুষ্ঠিত ৩০ বন্ধুপ্রতিম দেশের অংশগ্রহণে তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক নৌ-শক্তি মহড়া উদ্বোধনের পাশাপাশি বিকেলে কক্সবাজার শহরের বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

এই জনসভা সফল করতে আওয়ামী লীগের অনেক কেন্দ্রীয় নেতারা এখন কক্সবাজারে। দুইদিন আগেই সেখানে পৌঁছে যান মিরসরাইয়ের বারবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ। কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সকল স্তরের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে তিনি এই জনসভা সফলে নির্দেশনা দিয়েছেন। চট্টগ্রামের পর কক্সবাজারেও নৌকার আদলে তৈরি হওয়া প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থল তাঁর নেতৃত্বে নেতারা পরিদর্শন করেছেন সোমবার। এখন অপেক্ষা শুধুই প্রধানমন্ত্রীর আগামনের।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল আলম চৌধুরী নিউজনাউকে বলেন, জনসভায় ৫ লাখ লোকসমাগম হবে, আমরা সেভাবেই প্রস্তুতি নিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী সবই জানেন। কক্সবাজারের সংকট আর সম্ভাবনা সবকিছুই তিনি আমাদের চেয়ে বেশি জানানে। তাই তাঁকে কিছু বলার দরকার নেই। না চাইতেই তিনি আমাদের অনেক দিয়েছেন।'

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সফল করতে দুইদিন ধরে আমাদের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ ভাই কক্সবাজারে অবস্থান করছেন। তাঁর নির্দেশনায় আমরা কাজ করছি। উৎসাহ উদ্দীপনার পাশাপাশি তিনি নানা দিক থেকে সহায়তাও করছেন আমাদের।'

কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা প্রসঙ্গে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন নিউজনাউকে বলেন, চট্টগ্রামে আমরা সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে স্মরণকালের সেরা জনসভা করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী খুশি হয়েছেন। আশাকরি কক্সবাজারেও আমরা সফল জনসভা করব।

কক্সবাজারকে পর্যটনের অপার সম্ভাবনার শহর উল্লেখ করে সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, কক্সবাজারে যতগুলো হোটেল–মোটেল রয়েছে, তিনটি ছাড়া বাকিগুলোর সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (এসটিপি) নেই। মনুষ্য বর্জ্যসহ ময়লা–আবর্জনা যাচ্ছে শহরের বাঁকখালী নদী হয়ে বঙ্গোপসাগরে। দূষিত হচ্ছে সমুদ্রের পানি। মারা যাচ্ছে মাছসহ সামুদ্রিক প্রাণী। ধ্বংস হচ্ছে জীববৈচিত্র্য। কক্সবাজারে কেন্দ্রীয় এসটিপি স্থাপনের কথা প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হবে।

চট্টগ্রামে এই এসটিপি হওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বললাম যে, আমাদের চট্টগ্রামে সিএসটিপি (সেন্ট্রাল সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট) নাই। যা ঢাকাতে আছে, পাগলায়। উনি (প্রধানমন্ত্রী) আবার আমাকে জিজ্ঞেস করলেন যে, নাই? আমি বললাম, না। এখন সিএসটিপি চট্টগ্রামের জন্য অনুমোদন হয়েছে এবং কাজও শুরু হয়েছে। যা শহরকে রক্ষা করবে। জনগনের পয়ঃবর্জ্য যেটা আছে, এটা কিন্তু খালে-নালায় পড়তো। এখন এসটিপির মাধ্যমে সেন্ট্রাল এসটিপিতে যাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্প অনুমোদন করছে। এই প্রকল্প ইতোমধ্যে দরপত্র ডেকেছে ওয়াসা এবং এটার কাজের নির্দেশও দিয়ে দিয়েছেন। চট্টগ্রামের জন্য যা বিশাল অর্জন।’

এদিকে কক্সবাজার শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম মাঠে প্রধানমন্ত্রীর জনসভার সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। পুরো শহর ছেয়ে গেছে ব্যানার, ফেস্টুন ও তোরণে। এতে শোভা পাচ্ছে কক্সবাজারে চলমান মেগা প্রকল্প ও বাস্তবায়িত প্রকল্পগুলোর ব্যানারও।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। দলীয় নেতাকর্মীরা আশা করছেন, এবারের জনসভাটি কক্সবাজারের স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসমাগমে পরিণত হবে। প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে ভ্যানে নৌকা নিয়ে সারাশহর প্রদক্ষিণ করেছে প্রাক্তন ছাত্রলীগ পরিষদ।

এদিকে, কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থার পাশাপাশি মোতায়েন রয়েছে অতিরিক্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য। জনসভাস্থলসহ আশপাশের এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের দেওয়া তথ্য মতে, কক্সবাজারে জনসভায় ২৮ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এক হাজার ৩৮৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। একই সঙ্গে ৫৭২ কোটি টাকা ব্যয়ে চারটি নতুন উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন তিনি।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

X