alo
ঢাকা, শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ৩, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আ.লীগকে পাল্টা কর্মসূচি না দেয়ার আহ্বান ফখরুলের

প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৭:৩২ পিএম

আ.লীগকে পাল্টা কর্মসূচি না দেয়ার আহ্বান ফখরুলের
alo

নিউজনাউ ডেস্ক: বিএনপির কর্মসূচির দিন আওয়ামী লীগকে পাল্টা কর্মসূচি না দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার (১৮ জানুয়ারি) বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্ত তুলে ধরে এই আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক পন্থায় ত্রাস সৃষ্টি করার লক্ষ্যে বিরোধীদলের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির সময় পাল্টা কর্মসূচি ঘোষণা করছে। তাদের নেতৃবৃন্দের উস্কানিমূলক বক্তব্য বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ্যেই বিরোধীদলের নেতা-কর্মীদের হাত-পা ভেঙে দেওয়া, হাত জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি ও নির্দেশ ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীদের আরো অনুপ্রাণিত করেছে এবং এই কারণেই সন্ত্রাসী কাজগুলো একেবারে লাগামহীনভাবে ঘটছে।

মির্জা ফখরুল জানান, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সভায় আওয়ামী লীগের এই অপতৎপরতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। বিএনপি ও বিরোধী দলের কর্মসূচির পাল্টা কর্মসূচি পালন করা, বাধা প্রদান এবং একই দিনে একই সময় কোনা কর্মসূচি প্রদান না করার আহ্বান জানানো হয়। অন্যথায় উদ্ভুত পরিস্থির সকল দায় আওয়ামী লীগ ও সরকারকেই বহন করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও সরকারের মন্ত্রীরা মুখে গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টির কথা বললেও বাস্তবে সন্ত্রাসী পরিবেশ তৈরি করছে। গণবিরোধী সরকার বিরোধীদলগুলোর আন্দোলনকে নস্যাৎ করতে চাইছে। তাদের মূল লক্ষ্যটাই হচ্ছে, উস্কানি দেওয়া, বিরোধীদলকে উস্কানি দিয়ে একটা ট্র্যাপের মধ্যে ফেলা যাতে করে একটা সাংঘর্ষিক অবস্থার সৃষ্টি হয়। বিএনপি অত্যন্ত সচেতনভাবে সেই পরিস্থিতি যাতে না ঘটে তার জন্য অত্যন্ত ধর্য়ের সঙ্গে তারা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি প্রদান করে আসছে।

ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, চট্টগ্রামে এখন যেটা হচ্ছে, আমাদের প্রতিটি নেতার বাড়ি বাড়ি হামলা হচ্ছে, পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে, গ্রেফতার করার চেষ্টা করছে। বাড়ি ভাংচুর করছে। বুঝা যাচ্ছে সরকার পরিকল্পিতভাবে দেশে একটা সংঘাতময় পরিস্থিতির সৃষ্টি করে জনগনের আন্দোলনকে দমন করবার জন্য নীল নকশা করেছে।

টেলিফোনে আড়িপাতা নিয়ে তিনি বলেন, সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর টেলিফোনে আড়িপাতার বিষয়ে আইন প্রণয়নের ঘোষণায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। বিএনপির মনে করে কর্তৃত্ববাদী-অনির্বাচিত সরকার তাদের অবৈধ উপায়ে দখলকৃত ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার লক্ষ্যে বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের নজরদারীতে রাখার জন্য মুঠোফোন ও ইন্টারনেট যোগাযোগের ওপর নজরদারি করতে সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি ক্রয় ও আড়িপাতার আইন প্রণয়ন করতে চলেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা মনে করি, এই ভয়াবহ নিবর্তনমূলক আইন ও আইনশৃংখলা রক্ষা বাহিনীর অগণতান্ত্রিক আচরণ জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ও সাংবিধানিক অধিকার কেড়ে নিতে সহায়ক ভূমিকা রাখছে। অবিলম্বে এই সব প্রযুক্তি ক্রয় করা ও আইন প্রণয়নের অপচেষ্টা থেকে বিরত থাকার জন্য বিএনপি আহ্বান জানাচ্ছে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গত চার বছরে ১ হাজার ২০৯ ট মামলা দায়ের হয়েছে। বিএনপি মনে করে এই চরম নিবর্তনমূলক আইনের মাধ্যমে ভিন্নমত পোষণকারী ব্যক্তি, সংবাদকর্মী, বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার এবং আটকের মাধ্যমে জনগণের গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক অধিকারের ওপর চরম আঘাত করা হচ্ছে। লংঘন করা হচ্ছে মানবাধিকার। নিরপরাধ ব্যক্তিদের ওপর এই আইনের অপপ্রয়োগের ফলে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণ করা হচ্ছে। অবিলম্বে এই আইনের আওতায় বন্দি ব্যক্তিদের মুক্তি ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।

X