alo
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এমবাপ্পের গতি, জিরুদের রেকর্ডের রাতে ফ্রান্সের বড় জয়

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর, ২০২২, ০৩:৪৮ এএম

এমবাপ্পের গতি, জিরুদের রেকর্ডের রাতে ফ্রান্সের বড় জয়
alo

 

নিউজনাউ ডেস্ক: বিশ্বকাপ শুরুর আগেই ইনজুরিতে পড়ে ছিটকে গেছেন দলের সেরা খেলোয়াড়রা। তবে নিজেদের প্রথম ম্যাচে প্রেসনেল কিমপেম্বে, ক্রিস্তোফার এনকুনকু এবং করিম বেনজেমাদের অভাব বুঝতেই দিল না ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। সুপারস্টার কিলিয়ান এমবাপ্পের গতি আর অলিভিয়ে জিরুদের রেকর্ড গড়া ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪-১ এর বড় জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে দিদিয়ের দেশমের দল।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) রাতে আল জানউব স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরুতেই চমক দেয় অস্ট্রেলিয়া। কে জানে গ্রুপ পর্বে বিদায়ের জুজু, একটা অভিশাপ চ্যাম্পিয়নদের তাড়া করে বেড়ায়। ওই জুজুতেই কিনা ম্যাচের শুরুতেই গোল খেয়ে বসে ফ্রান্স।সকারুরা ম্যাচের ৯ মিনিটে অসাধারণ এক গোল করে। জোরের ওপর লম্বা করে বাড়ানো বল ধরেন লেস্ককি। লুকাস হার্নান্দেজকে কাটিয়ে ঢুকে পড়েন বিপদজনক পজিশনে। ফাঁকায় থাকা গুডউইনকে দারুণ পাস দিয়ে গোল করান তিনি।

অস্ট্রেলিয়ার ওই গোলের সঙ্গেই দ্বিতীয় ধাক্কাটি খায় ফ্রান্স। ইনজুরি নিয়ে মাঠ ছাড়েন বায়ার্ন মিউনিখে খেলা লেফট ব্যাক লুকাস হার্নান্দেজ। তার বদলি নামেন ভাই থিও হার্নান্দেজ। তিনিই গোল শোধের কারিগর হন। ম্যাচের ২৭ মিনিটে বাঁ-পায়ের এই ডিফেন্ডারের ক্রসে দারুণ এক হেড দিয়ে লেস ব্লুজদের সমতায় ফেরান আন্দ্রে রাবিওট। এরপর জিরুদের গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় তারা। আর দ্বিতীয়ার্ধে এমবাপ্পে ব্যবধান বাড়ানার পর শেষ গোলটিও করেন জিরুদ।

প্রথম নয় মিনিট বাদ দিলে ম্যাচের গল্প শুধুই ফ্রান্সের। আরও নির্দিষ্ট করে বললে এমবাপ্পে আর জিরুদের। যদিও এই জিরুদ ছিলেন না ফ্রান্সের মূল একাদশে। ব্যালন ডি'অর জয়ী করিম বেনজেমাই ছিলেন ফ্রান্সের প্রধান স্ট্রাইকার। তবে  ইনজুরির কারণে বেনজেমা বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ায় মূল একাদশে জায়গা হয় জিরুদের। আর জায়গা পেয়েই গোল করে ফ্রান্সকে এগিয়ে নেন। সেই সঙ্গে পূর্ণ করেন জাতীয় দলের হয়ে গোলের অর্ধশতক। পরে আরও একটি গোল করে এদিন ফ্রেঞ্চ কিংবদন্তি স্ট্রাইকার থিয়েরি অঁরির ৫১ গোলের রেকর্ড ছুঁয়েছেন জিরুদ।

দ্বিতীয়ার্ধেও একের পর এক আক্রমণ করে ব্যবধান বাড়ানোর উপায় খুঁজছিলেন এমবাপ্পে-গ্রিজম্যানরা। অবশেষে ম্যাচের ৬৮তম মিনিটে এসে স্কোরশিটে নাম লেখান কিলিয়ান এমবাপ্পে। ডান দিক থেকে দুই ডিফেন্ডারের মধ্য থেকে ক্রস করে ডি বক্সের ভেতর এমবাপে খুঁজে নেন উসমান দেম্বেলে। আর বল পেয়ে লাফিয়ে উঠে হেড করে বল জালে জড়িয়ে ব্যবধান ৩-১ করেন এমবাপ্পে।

২০১৮ সালের বিশ্বকাপে অভিষেক আসরে ৪ গোল করে দেশের শিরোপা জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন এমবাপ্পে। ২৩ বছর বয়সে বিশ্ব সেরার মঞ্চে তার গোল হলো ৫টি। ২৪ পূরণের আগে বিশ্বকাপে তার চেয়ে বেশি গোল করার কৃতিত্ব আছে কেবল পেলে (৭), মারিও কেম্পেস (৬) ও হামেস রদ্রিগেসের (৬)।

এমবাপ্পের গোলের মিনিট তিনেক পরে নিজের ৫১তম গোল করে ফ্রান্সের জয় এক প্রকার নিশ্চিত করেন জিরুদ। অস্ট্রেলিয়ার ডিফেন্ডারদের নাচিয়ে দারুণ এক বল ক্রস করেন এমবাপে। ডি বক্সে থাকা জিরুদ হেড করে বল জালে জড়ান। আর তাতেই থিয়েরি অঁরির করা ৫১ গোলের রেকর্ডে ভাগ বসান জিরুদ। এতেই ফ্রান্স এগিয়ে যায় ৪-১ গোলের ব্যবধানে।

এখন শুরুর এই দাপুটে পারফরম্যান্স ধরে রেখে এগিয়ে যাওয়ার পালা দুবারের চ্যাম্পিয়ন লেস ব্লুজদের সমানে।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

X